নির্বাচকমণ্ডলীর সংজ্ঞা দাও । আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলীর ভূমিকা আলোচনা কর ।

admin


ভূমিকা : “নির্বাচকমণ্ডলী কার্যত সরকারের একটি স্বতন্ত্র ও অত্যন্ত প্রভাবশালী শাখা।” [অধ্যাপক গেটেল] গণতন্ত্রের জন্য নির্বাচকমণ্ডলী একটি অপরিহার্য অঙ্গ। নির্বাচকমণ্ডলীকে বাদ দিয়ে একনায়কতান্ত্রিক শাসন নিশ্চিতভাবে পরিচালিত হতে পারে, কিন্তু গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার মূল চালিকাশক্তি নির্বাচকমণ্ডলী। প্রাচীন কালে জনগণ শাসনকার্যে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতো। কিন্তু বর্তমানে বিশাল আয়তন বিশিষ্ট রাষ্ট্রে জনগণ প্রত্যক্ষভাবে শাসন কাজে অংশগ্রহণ করতে পারে না। তাই তারা প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে প্রতিনিধি নির্বাচন করে এবং প্রতিনিধিরা আইন ও শাসন বিভাগীয় কাজে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। তাই দেখা যায়, গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় নির্বাচকমণ্ডলীর গুরুত্ব অপরিসীম।


নির্বাচকমণ্ডলীর সংজ্ঞা দাও । আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলীর ভূমিকা আলোচনা কর ।


নির্বাচকমণ্ডলী সংজ্ঞা : সাধারণভাবে বলা যায়, দেশের আইন অনুযায়ী যারা সাধারণ নির্বাচনে ভোটদানের অধিকার উপভোগ করেন সার্বিকভাবে তাদের সমষ্টিকে নির্বাচকমণ্ডলী বুঝায় ।

বিভিন্ন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী বিভিন্নভাবে নির্বাচকমণ্ডলীর সংজ্ঞা দিয়েছেন।

JW Garner, "An electorate is the body of citizens which is most democratic states determines in the last analysis the form of government of the state and choose those who guide and direct its affairs."

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী উইলোবী বলেন, “প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্রের মূলভিত্তি হচ্ছে নির্বাচকমণ্ডলী।”

Lasky এর ভাষায়, "Electorate implies voters those select the representative to represent the state."

আরো দেখুন : গণতন্ত্রের সফলতার পূর্বশর্তগুলো আলোচনা কর।

নির্বাচকমণ্ডলীর ভূমিকা বা কার্যাবলি : গণতন্ত্রে জনগণই সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী। ভোটদান ক্ষমতা প্রয়োগের মাধ্যমে জনগণ তাদের সার্বভৌম ক্ষমতা কার্যকরী করে। নির্বাচিত প্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য ভোটাধিকার ছাড়া সাম্প্রতিক কালের গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা অর্থহীন হয়ে পড়বে। সেজন্য ভোটাধিকার আধুনিক গণতন্ত্রের প্রাণস্বরূপ। তাই জনগণের আস্থা ও অনাস্থার উপরই গণতান্ত্রিক সরকারের উত্থানপতন বহুলাংশে নির্ভরশীল।


নিম্নে নির্বাচকমণ্ডলীর ভূমিকা বা কার্যাবলি আলোচনা করা হলো :


১. প্রতিনিধি নির্বাচন : নির্বাচকমণ্ডলীর প্রধান কাজ হলো সরকার পরিচালনার জন্য প্রতিনিধি নির্বাচন করা। মন্ত্রিপরিষদ শাসিত সরকারে নির্বাচকমণ্ডলী আইনসভার সদস্যদেরকে নির্বাচিত করে। অপরদিকে, রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারের প্রশাসন জনগণের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়। এভাবে নির্বাচকমণ্ডলী সরকার পরিচালনার জন্য প্রতিনিধি নির্বাচন করে।


২. সরকার পরিবর্তন : সরকার পরিবর্তনেও নির্বাচকমণ্ডলী এক বিশেষ অবদান রাখে। জনপ্রতিনিধিরা জনস্বার্থের পক্ষে কাজ করছে কি না নির্বাচকমণ্ডলী তা দেখে থাকেন। জনস্বার্থের বিরোধী কাজ করলে নির্বাচকমণ্ডলী পরবর্তী নির্বাচনে সরকার পরিবর্তনের জন্য নতুন প্রতিনিধি নির্বাচন করতে পারেন। এ পরিবর্তনের কাজ সরকারের মেয়াদ অন্তেও হতে পারে। আবার মেয়াদ পূরণের পূর্বেও আন্দোলনের মাধ্যমে হতে পারে। এজন্য ক্ষমতাসীন সরকার নির্বাচকমণ্ডলীর মর্জিমাফিক নীতি কার্যকরী করে থাকে।

আরো পড়ুন : রাজনৈতিক তত্ত্ব সম্পর্কে আচরণবাদী দৃষ্টিভঙ্গি আলোচনা কর।

৩. গণতন্ত্রের সফল বাস্তবায়ন : নির্বাচকমণ্ডলী সরকারের জনস্বার্থ বিরোধী কার্যক্রমের সমালোচনা করে বলে সরকার স্বেচ্ছাচারী হতে পারে না। এটি সরকারের ক্ষমতার উপর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকারের ক্ষমতাকে সীমিত করে। এটি গণতন্ত্রের বিকাশের পক্ষে সহায়ক। গণতন্ত্রে জনগণ সরকারি কাজে সরাসরি অংশগ্রহণের সুযোগ পায়। এভাবে নির্বাচকমণ্ডলী গণতন্ত্রের সফল বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


৪. প্রবহমান জনমতের প্রতিফলন : বর্তমান কালের প্রতিনিধিত্বমূলক শাসনব্যবস্থায় নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচকমণ্ডলীর প্রকৃত জনমতের প্রতিফলন ঘটে। গণতান্ত্রিক আদর্শ অনুসারে আইনসভা হবে জনমতের প্রকৃত দর্পণ। পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের জন্য জনমত যাচাই করার প্রয়োজন দেখা দিতে পারে। এরকম অবস্থায় সরকারি নীতি ও কর্মসূচি পুনর্বিবেচনার জন্য নির্বাচকমণ্ডলী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ফলে সরকারি কাজকর্মে তাদের প্রবহমান জনমত প্রতিফলিত হয়।


৫. সরকারকে নিয়ন্ত্রণ : আধুনিক গণতন্ত্রে সরকারের অস্তি ত্ব রক্ষায় নির্বাচকমণ্ডলীর ভূমিকা অত্যধিক। প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্রে নির্বাচকমণ্ডলী জনপ্রতিনিধিদেরকে বিভিন্ন পদ্ধতির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। আধুনিক প্রতিনিধিত্বশীল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে সরকার জনস্বার্থে কাজ করে। কিন্তু ক্ষমতাসীন দল যদি জনস্বার্থ বিরোধী কাজ করে তাহলে নির্বাচকমণ্ডলী গণভোট, গণউদ্যোগ ও গণনির্দেশের মাধ্যমে তা রোধ করে এবং সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করে।

আরো পড়ুন : রাজনৈতিক তত্ত্বের অংশ হিসেবে মার্কসীয় তত্ত্বটি আলোচনা কর

সংবিধান প্রণয়ন ও সংশোধনে সহায়তাদান : গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের:

সংবিধান প্রণয়ন ও সংশোধনে নির্বাচকমণ্ডলী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এখানে নির্বাচকমণ্ডলীর মতামতের উপর ভিত্তি করে রাষ্ট্রের সংবিধান প্রণয়ন ও সংশোধন করা হয়। নতুন কোন সংবিধান গ্রহণ করার পূর্বে নির্বাচকমণ্ডলীর মতামতের প্রাধান্য প্রতিফলিত হয়।


৭. জাতীয় সমস্যার সমাধান : রাষ্ট্রে জাতীয় সমস্যার সৃষ্টি হলে সে মুহূর্তে নির্বাচকমণ্ডলী সরকারের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এমনকি ঐ সমস্যা সমাধানের জন্য সরকারকে চাপ দেয়। সরকার চাপের মুখে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সমর্থ হয়।

আরো পড়ুন : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের প্রেক্ষাপটে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ব্যাখ্যা কর।

৮. সরকারের অপরিহার্য অঙ্গ : আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলী সরকারের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করে। এজন্য অনেকে নির্বাচকমণ্ডলীকে সরকারের অপরিহার্য অংশ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। তাছাড়া কোন কোন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী নির্বাচকমণ্ডলীকে সরকারের চতুর্থ বিভাগ হিসেবে গণ্য করেন।


৯. সরকার ও জনগণের সেতু : গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলীর দৃষ্টিভঙ্গি সরকারের কার্যক্রম ও জনগণের আশা- আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটায়। যার ফলে সরকার ও জনগণের মধ্যে সেতু সৃষ্টি হয়।


১০. ভোটাধিকার প্রয়োগ : ভোটাধিকার সকল প্রকার রাজনৈতিক অধিকারের মূল উৎস হিসেবে পরিগণিত হয়। | গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় যোগ্য, বিজ্ঞ, দক্ষ প্রার্থী নির্বাচন করা নির্বাচকমণ্ডলীর এক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব বিশেষ। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে । জনগণই সার্বভৌম শক্তির অধিকারী। জনগণের এ শক্তি | একমাত্র ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমেই প্রকাশিত হয়। সুতরাং নির্বাচকমণ্ডলীর ভোটাধিকার প্রয়োগ এমন বিশেষ শক্তি, যা দ্বারা সরকারের আইন প্রণয়নকে প্রভাবিত করতে পারে।


১১. সরকারকে সহায়তাদান : সরকার কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে নির্বাচকমণ্ডলীর সহায়তা কামনা করে। সেই মুহূর্তে নির্বাচকমণ্ডলী সরকারকে সহায়তা করে শাসন কাজ পরিচালনা করতে সাহায্য করে। নির্বাচকমণ্ডলীর এ সহায়তা সরকার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পেয়ে থাকে।


১২. আইন প্রণয়নে প্রভাব : বিস্তার প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রে নির্বাচকমণ্ডলী আইন প্রণয়ন ও পরিবর্তনে সরাসরি অংশগ্রহণ করে থাকে। তাছাড়া প্রতিনিধিত্বমূলক শাসনব্যবস্থাও নির্বাচকমণ্ডলীর চাহিদার প্রেক্ষিতেই আইন প্রণয়ন ও পরিবর্তিত হয়ে থাকে। নির্বাচকমণ্ডলী আইনসভার সদস্যদের নির্বাচন করে থাকে। আইনসভায় জনগণের জন্য কল্যাণকর আইন প্রণয়নের সময় নির্বাচকমণ্ডলী আইনসভার সদস্যদেরকে প্রভাবিত করতে পারে।

আরো পড়ুন : মার্কিন সুপ্রিমকোর্টের বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনা ক্ষমতা আলোচনা কর

১৩. একনায়কতন্ত্র ও দুর্নীতি রোধ : জনমতের উপর ভিত্তি করে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত। ফলে শাসনকার্যে দুর্নীতিমূলক প্রভাবের আশঙ্কা খুব একটা থাকে না। সাধারণত নির্বাচকমণ্ডলী সৎ, দক্ষ ও বিজ্ঞ প্রতিনিধিদের নির্বাচন করে থাকেন এবং এভাবে তারা একনায়কতান্ত্রিক শাসন ও দুর্নীতি রোধ করে থাকেন।


১৪. রাজনৈতিক দলের উপর নিয়ন্ত্রণ : নির্বাচকমণ্ডলী রাজনৈতিক দলের উপরও প্রভাব এবং নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে থাকে। নির্বাচকমণ্ডলীর মতামত বা তাদের চিন্তাধারা দ্বারা রাজনৈতিক দলগুলো প্রভাবিত হয়ে থাকে।


উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনা শেষে বলা যায় যে, | আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে গণতান্ত্রিক রীতিনীতি প্রণয়ন করাই হচ্ছে নির্বাচকমণ্ডলীর প্রধান উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলী নিষ্ক্রিয় নয় বরং সক্রিয় শক্তি হিসেবে দলের স্বেচ্ছাচারী মনোভাবকে দূরীভূত করে। নির্বাচকমণ্ডলী সরকারকে সঠিকভাবে রাষ্ট্র পরিচালনায় সহায়তা করে থাকে। অধ্যাপক গার্নার বলেন, “অধিকাংশ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নির্বাচকমণ্ডলী সরকারের ধরন ও আকার পরিচালনাকারী।”




#buttons=(Ok, Go it!) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Check Now
Ok, Go it!